দ্বিতীয় ম্যাচে বাউন্সব্যাক, ISL-এর ফাইনালে মোহনবাগান

যুবভারতীতে ওড়িশার বিরুদ্ধে বদলার ম্যাচে বাউন্সব্যাক মোহনবাগানের। লেগের প্রথম ম্যাচে কলিঙ্গ স্টেডিয়ামে ২-১ গোলে পরাজয় স্বীকার করতে হয়েছিল সবুজ মেরুন বাহিনীকে। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে ঘরের মাঠে ২-০ ব্যবধানে জিতে মধুর প্রতিশোধ নিল তারা, শুধু জয়লাভই নয় একইসঙ্গে প্রথম টিম হিসেবে এই মরশুমের ISL-এর ফাইনালে জায়গা করে নিল মোহনবাগান সুপার জায়েন্টস।

গত ম্যাচে ওড়িশার বিরুদ্ধে পরাজয়ের পর এদিন ঘরের মাঠে জয়ের জন্য তাগিদ একটু বেশিই ছিল মোহনবাগানের, বাড়তি অ্যাডভান্টেজ ৬০ হাজার সমর্থক। তাই শুরু থেকেই আক্রমণাত্বক মনোভাব নিয়ে খেলা শুরু করে তারা। ম্যাচের ২২ মিনিটের মাথায় জেসন কামিংসের করা গোলে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় মোহনবাগান, তখন দু’ম্যাচ মিলিয়ে স্কোর লাইন দাঁড়ায় ২-২। সমতায় ফিরে এবার জয়ের জন্য ঝাঁপায় সবুজ মেরুন বাহিনী। তবে প্রথমার্ধ শেষ হয় ১-০ ব্যবধানেই।

দ্বিতীয়ার্ধে ফের খেলা শুরু হলে আক্রমণ প্রতি আক্রমণে খেলা চলতে থাকে, দু’পক্ষই জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে। কিন্তু দুই দলই খেলার ৯০ মিনিট পর্যন্ত জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় একটি গোল করতে ব্যর্থ হয়। খেলা যখন ৯০ মিনিট অতিক্রান্ত করে ইনজুরি টাইমে তখন মোহবাগানের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন সাবস্টিটিউট হিসেবে দ্বিতীয়ার্ধে নামা সাহাল আব্দুল সামাদ। খেলার ফল দাঁড়ায় ২-০, দু’ম্যাচ মিলিয়ে স্কোরলাইন মোহনবাগান সুপার জায়েন্টস ৩-২ ওড়িশা FC।

এই জয়ের ফলে চলতি মরশুমে ISL-এর প্রথম দল হিসেবে ফাইনালে জায়গা করে নিল সবুজ মেরুন শিবির। আগেই এই মরশুমের লিগ শিল্ড জয় করেছে মোহনবাগান। উল্লেখ্য, গতবছর ISL কাপও জয় করেছিল তারা, এবছর ফের কাপ জয় করতে পারে কিনা এখন সেটাই দেখার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.