হোয়াটস অ্যাপে নীল রঙের জিনিসটি দেখেছেন? করতে পারে অসাধ্য সাধন

দিন কয়েক হল হোয়াটস অ্যাপ খুললেই একটা নীল গোল্লা। কি, চোখে পড়েছে তো। কিন্তু কী এই ফিচার, জন্ম কীভাবে, কী কাজ করে ? আসুন বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

ChatGPT, Bing ও Google Bird- র পর এবার নিজস্ব chatbot নিয়ে এল ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রামের মূল সংস্থা মেটা (Meta)। chatbot টির নাম Meta AI। দুমাস আগেই অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং কানাডার মতো দেশগুলিতে এটি চালু করে মেটা। এবার সেই প্রযুক্তি চালু হল ভারতেও।

Chatbot টি তৈরিতে মেটা ব্যবহার করেছে তাদের নিজস্ব ল্যাঙ্গুয়েজ মডেল (LLM)- র নতুন এবং সবচেয়ে শক্তিশালী ভার্সন LLMA 3। এছাড়া এই Ai bot টি মেশিন লার্নিং অ্যালগরিদম ব্যবহার করে, যার ফলে এটি ক্রমাগত মানুষের আচরণ থেকে শিখতে থাকবে। অর্থাৎ ব্যবহারকারীর আচরণের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেওয়া এবং প্রসঙ্গ বুঝে উত্তর দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে এতে। যেটি একে স্ট্যান্ডার্ড Ai সিস্টেমগুলির থেকে আলাদা করে।

কি কি করা যাবে meta AI তে :-

ব্যবহারকারীরা তাদের পছন্দমতো যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন ai টিকে। দৈনন্দিন কাজ থেকে পড়াশুনায় সহায়তা সবকিছুর জন্যই প্রস্তুত এই meta ai। যেমন ইমেল করা, কোনো গণিতের সমস্যা, গ্রাফিক্স তৈরি করা বা কোনো রান্নার রেসিপি সবকিছুই জিজ্ঞাসা করতে পারেন একে।

এছাড়া নতুন কি বই বেরিয়েছে থেকে কোথায় নতুন রেস্টুরেন্ট খুলেছে সবই জেনে যেতে পারেন সেকেন্ডের মধ্যে। এছাড়াও জেনারেট করা যাবে ইচ্ছেমত ছবি থেকে শুরু করে ইনস্টাগ্রাম রিল।

কিভাবে ব্যবহার করা যাবে

মোবাইল থেকে সহজেই ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম এবং হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাপগুলোর মাধ্যমে ব্যবহার করা যাবে এই Ai অ্যাসিস্ট্যান্টটিকে। আবার ল্যাপটপে ব্যবহার করতে হলে করতে পারেন meta.ai ওয়েবপেজ থেকে।

প্রথমেই প্লেস্টোরে গিয়ে আপডেট করে নিন অ্যাপটির নতুন ভার্সন। তারপর whatsapp হোয়াটসঅ্যাপ খুললেই নিচে ডানদিকে দেখতে পাবেন নীলচে-বেগনী রঙের গোলাকার চিহ্নটি। এটি প্রথমে আপনার কাছে অনুমতি চাইবে এবং তারপরেই জিজ্ঞাসা করা যাবে যে কোনও প্রশ্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.