৩৫ বছরে পড়ে যায় দাঁত, ৫৪ বছরে অভিনয়ে হাতেখড়ি ; চেনেন পঞ্চায়েতের আম্মাজি’কে

“মন কুছ আচ্ছা নেহি লাগ রাহা হ্যায়”

– কী মনে পডছে কিছু ?

পঞ্চায়েত সিজন থ্রি-র হ্যাংওভার এখনও কাটেনি। তা সে ডায়ালগ হোক, গান হোক কিংবা প্রিয় চরিত্র। আর এবার যারা মন জিতে নিয়েছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম আম্মাজি। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর পাওয়া নিয়ে তাঁর সেই আপ্রাণ চেষ্টা সহজে ভোলার নয়। কিন্তু কে এই আম্মাজি ? চেনেন কি ? কথা হচ্ছে অভিনেত্রী আভা শর্মাকে নিয়ে। ইনি বিখ্যাত কবি রামবিলাস শর্মার ভাইঝি।

পঞ্চায়েতে তাঁর অভিনয়, কমিক সেন্স, সহজ-সরল স্ক্রিন প্রেজেন্স মন জিতলেও নেপথ্যে লুকিয়ে আছে দারুণ একটা লড়াই। বলা ভালো একটা হার না মানা মানসিকতা। আভা শর্মার কথায়, ছোটো থেকে অভিনয় করার ইচ্ছে থাকলেও তাঁর পরিবার বিশেষ করে মা অভিনয়ের পেশাকে কখনও ভালো চোখে দেখতেন না। পরিবার সুশিক্ষিত, তবে বড্ড গোঁড়া ছিল। তাই মায়ের ইচ্ছের বিরুদ্ধে আর যাওয়া হয়নি। তবে মনের মধ্যে কোথাও যেন বেঁচেছিল অভিনয়ের ইচ্ছে। তাই মায়ের মৃত্যুর পর ভাই-বোনের ভরসায় ৫৪ বছর বয়সে অভিনয় শুরু করেন তিনি।

দিল্লি ও হায়দ্রাবাদে ছড়িয়ে রয়েছে পরিবার। পরিবারের ছোটো মেয়ে আভা বাবার মৃত্যুর পর মায়ের সেবা-যত্নে নিয়োজিত হন। তাই আর বিয়ে করার সময় হয়নি। তবে এখানেই শেষ নয়। জীবন তাঁর প্রতি সেভাবে সদয় হয়নি কোনওদিন। মাত্র ৩৫ বছর বয়সে একটি সংক্রমণের জেরে তাঁর সমস্ত দাঁত পড়ে যায়। আবার ৪৫ বছর বয়সে এসেও কঠিন রোগের শিকার হন তিনি। কিন্তু কোনওকিছুই থামাতে পারেনি আভাকে।

২০০৮ সাল। লখনউতে থিয়েটার করা শুরু করেন। ২০০৯ সাল। ব্যাঙ্ক অফ বরোদার একটি বিজ্ঞাপনের অডিশন সম্পর্কে জানতে পারেন আর অডিশন দেন। সেই যাত্রা শুরু। এরপর দুটো বায়োপিক করার অফার আসে তাঁর কাছে। পরিণীতি-অর্জুনের ইশকজাদে সিনেমায় দেখা যায় তাঁকে। সুধীর মিশ্রের একটি ছবিতেও অভিনয় করতে দেখা যায় তাঁকে। করোনা পরবর্তী সময়ে পঞ্চায়েতের একটি চরিত্রের জন্য অডিশন দেন। বাকিটা ইতিহাস।

চেষ্টা, সদিচ্ছা আর কাঙ্খিল লক্ষ্যে পৌঁছানোর জেদ থাকলে বোধহয় সবই সম্ভব। হয়তো একটু সময় লাগবে। তবে একদিন সাফল্য দরজায় ঠিক কড়া নাড়বে। আরও একবার সেই কথাই যেন মনে করিয়ে দিলেন আম্মাজি।

সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল-https://www.youtube.com/@NagarNama424

ফলো করুন ফেসবুক পেজ-https://www.facebook.com/nagarnamanews

Leave a Reply

Your email address will not be published.