ফের তাজা হচ্ছে ছিয়াত্তরের স্মৃতি, কান চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হবে শ্যাম বেনেগালের মন্থন

দেশে তখন জরুরি অবস্থা। ক্রমবর্ধমান একের পর এক সমস্যা। তবে সৃজনশীলতাকে লাগাম দেওয়ার সাধ্যি কার আছে ? দেশের এমনই এক স্পর্শকাতর সময়ে তৈরি হয়েছিল এক কালজয়ী সিনেমা। মাঝে কেটে গেছে বেশ কয়েকটা দশক। এবার ফের কান চলচ্চিত্র উৎসবে তাজা হচ্ছে ছিয়াত্তরের স্মৃতি। ক্লাসিক বিভাগে প্রদর্শিত হচ্ছে শ্যাম বেনেগাল নির্মিত মন্থন। বলাবাহুল্য, ভারতীয় তথা বিশ্ব সিনেমার কাছে এ এক প্রাপ্তি।

সত্তরের দশকে “অপারেশন ফ্লাড” নামক মিল্ক কো-অপারেটিভ মুভমেন্ট যা পরবর্তীতে ভারতবর্ষকে রূপান্তরিত করে বিশ্বের বৃহত্তম দুগ্ধ উৎপাদকে এবং জন্ম নেয় বিলিয়ন ডলারের ব্র্যান্ড আমূল। ৪৮ বছর আগে ডঃ ভার্গিস কুরিয়েনের শ্বেত বিপ্লবের পটভূমিতে এই সিনেমার আত্মপ্রকাশ। তৎকালীন সময়ে গুজরাতের ৫ লক্ষ কৃষকের ২ টাকা করে অনুদানে নির্মিত হয় ছবিটি। উল্লেখ্য, বেনেগাল ও নাট্যকার বিজয় তেন্ডুলকরের লিখিত গুজরাতের মন্থন হল ভারতবর্ষের প্রথম গণ-অর্থায়ন চলচ্চিত্র।

২ ঘণ্টা ১৪ মিনিটের এই ছবিতে অভিনয় করেছিলেন স্মিতা পাতিল, নাসিরুদ্দিন শাহ, গিরীশ কারনাড, অমরিশ পুরী, কুলভূষণ খারবান্দা, মোহন আগাসে, অনন্ত নাগ থেকে শুরু করে একাধিক কিংবদন্তী অভিনেতা-অভিনেত্রী। এবার সেই ছবির প্রিন্ট পুনরুদ্ধার করেছে ফিল্ম হেরিটেজ ফাউন্ডেশন এবং তার নতুন সংস্করণ প্রদর্শিত হবে কান চলচ্চিত্র উৎসবে। এই পুনরুদ্ধার কার্যে পরিচালক শ্যাম বেনেগাল, চিত্রগ্রাহক গোবিন্দ নিহালানি থেকে শুরু করে অনেকে নিরন্তর চেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৭৭ সালে সেরা ফিচার ফিল্ম ও সেরা চিত্রনাট্য বিভাগে দু’টি জাতীয় পুরস্কারে ভূষিত হয় এই ছবি। ১৯৭৬-এর অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের সেরা বিদেশি চলচ্চিত্র বিভাগে মন্থনের হাত ধরেই শুরু হয় হয় ভারতীয় ছবির প্রবেশ। আপাতত ছবি দেখানোর অপেক্ষায় সিনেপ্রেমীরা।

এনিয়ে X হ্যান্ডেলে অমিতাভ বচ্চন লেখেন, ভীষণ গর্বিত যে ফিল্ম হেরিটেজ ফাউন্ডেশন কান চলচ্চিত্র উৎসবে পরপর তিন বছর থাকছে আর এবার আরও একটি অনবদ্য ভারতীয় সিনেমা মন্থনের প্রিন্ট পুনরুদ্ধার করে নতুন রূপে দেখানো হচ্ছে। তিনি আরও লেখেন, ভারতের ঐতিহ্যবাহী সিনেমাগুলি সংরক্ষণ করে বিশ্ব দরবারে প্রদর্শনের মাধ্যমে ফিল্ম হেরিটেজ ফাউন্ডেশন এক চমৎকার কাজ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.